Notice

৪১তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ

৪১তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হয়েছে। আজ বাংলাদেশ সরকারি কর্মকমিশন (পিএসসি) এ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে। ৪১ তম বিসিএস এ শূন্য পদের সংখ্যা ২১৬৬ টি।

৪১তম বিসিএসে শিক্ষা ক্যাডারে শূন্য পদের সংখ্যা ৯০৫ টি। এরমধ্যে প্রভাষক ৮৯২ জন, কারিগরি শিক্ষায় প্রভাষক ১৩ জন নেওয়া হবে। আর সাধারণ ক্যাডারে পদ সংখ্যা ৬৪২ টি এবং প্রফেশনাল/টেকনিক্যাল ক্যাডারে ৬১৯ টি।

সাধারণ ক্যাডারের মধ্যে প্রশাসনে ৩২৩ জনকে নিয়োগ দেয়া হবে। পাশাপাশি পুলিশে ১০০ জন, স্বাস্থ্যতে সহকারী সার্জন ১১০ জন ও সহকারী ডেন্টাল সার্জন ৩০ জন নিয়োগ পাবেন।

এছাড়া পররাষ্ট্রে ২৫ জন, সহকারী কর কমিশনার (কর) ৬০ জন, সহকারী কমিশনার (শুল্ক ও আবগারি) ২৩ জন, আনসারে ২৩ জন, অর্থ মন্ত্রণালয়ে সহকারী মহা হিসাবরক্ষক (নিরীক্ষা ও হিসাব) ২৫ জন ও সহকারী নিবন্ধক ৮ জন নেয়া হবে।

পরিসংখ্যান কর্মকর্তা ১২ জন, রেলপথ মন্ত্রণালয়ে সহকারী যন্ত্র প্রকৌশলী ৪ জন, সহকারী প্রকৌশলী (সিভিল) ২০ জন, সহকারী ট্রাফিক সুপারিনটেনডেন্ট ১ জন, সহকারী সরঞ্জাম নিয়ন্ত্রক ১ জন, সহকারী প্রকৌশলী (যান্ত্রিক) ৩ জন থাকছে ৪১তম বিসিএসে।

সহকারী পোস্টমাস্টার জেনারেল পদে ২ জন, কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা ১৮৩ জন, পশুসম্পদে ৭৬ জন, বিসিএস মৎস্যতে ১৫ জন ও বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ৬ জন, বিসিএস বাণিজ্যে সহকারী নিয়ন্ত্রক ৪ জন।

তথ্য মন্ত্রণালয়ে সহকারী পরিচালক ২২ জন, সহকারী পরিচালক (অনুষ্ঠান) ১১ জন, সহকারী বেতার প্রকৌশলী ৯ জন, সহকারী বার্তা নিয়ন্ত্রক ৫ জন, স্থানীয় সরকার বিভাগে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলে সহকারী প্রকৌশলী ৩৬ জন, সহকারী বন সংরক্ষক ২০ জন।

পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ৪ জন, খাদ্যে সহকারী খাদ্য নিয়ন্ত্রক ৬ জন ও সহকারী রক্ষণ প্রকৌশলী ২ জন, বিসিএস গণপূর্তে সহকারী প্রকৌশলী (সিভিল) ৩৬ জন ও সহকারী প্রকৌশলী (ই/এম) ১৫ জন থাকছে। সবমিলিয়ে ৪১তম বিসিএসে মোট দুই হাজার ১৩৫ জন কর্মকর্তা এই বিসিএসে পাবে।

আবেদনের যোগ্যতা:
প্রার্থীকে কোন স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় হতে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অথবা স্বীকৃত বোর্ড হতে এইচ.এস.সি পরীক্সার পাসের পর ৪ (চার) বচর মেয়াদি শিক্ষা সমাপনী ডিগ্রী অথবা সমমানের ডিগ্রী। তবে কোন প্রার্থীর শিক্ষা জীবনে একাধিক ৩য় বিভাগ/শ্রেণি বা সমমানের জিপিএ থাকলে তিনি যোগ্য বলে বিবেচিত হবেন না। প্রতিটি ক্যাডারের জন্য আলাদা আলাদা শিক্ষাগত যোগ্যতার বিবরণ বর্ণিত আছে। এপিয়ার্ড প্রার্থীরাও আবেদন করতে পারবেন। ১ নভেম্বর ২০১৯ তারিখে প্রার্থীর বয়স ২১ থেকে ৩০ বছর। শুধুমাত্র মুক্তিযোদ্ধার সন্তান এবং প্রতিবন্ধী প্রার্থীদের জন্য বয়সসীমা ২১ থেকে ৩২ বছর। প্রার্থীকে নির্ধারিত শারীরিক যোগ্যতায় যোগ্য হতে হবে।

আবেদনের নিয়ম:
আগ্রহী ও যোগ্য প্রার্থীরা ৫ ডিসেম্বর ২০১৯ থেকে আবেদন করতে পারবেন। আবেদন করা যাবে ৪ জানুয়ারি ২০২০ তারিখ পর্যন্ত। আবেদন ফি জমা দেয়া যাবে ৭ জানুয়ারি ২০২০ তারিখ সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত। প্রার্থীদেরকে টেলিটক বাংলাদেশের ওয়েব সাইট এবি থেকে আবেদন করতে হবে। আবেদন ফি জমা দিতে হবে টেলিটকের মাধ্যমে।

আবেদন ফি জমা:
অনলাইনে সফলভাবে আবেদন করার পর সাধারণ প্রার্থীকে আবেদন ফি ৭০০ টাকা এবং প্রতিবন্ধী প্রার্থীদের জন্য ১০০ টাকা প্রদান করতে হবে। আবেদন ফি টেলিটকের মাধ্যমে প্রদান করা যাবে। এপ্লিকেন্ট কপির নির্দেশনা অনুযায়ী আবেদন ফি জমা দিতে হবে।

প্রবেশপত্র ডাউনলোড:
অনলাইনে আবেদন করার পর সফলভাবে আবেদন ফি প্রদান করার পর বিসিএস প্রবেশপত্র ডাউনলোড করা যাবে। আবেদন ফি প্রদান করার পর টেলিটক হতে প্রেরিত এমএসএস এর মাধ্যমে প্রাপ্ত ইউজার আইডি এবং পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে প্রার্থী রেজিষ্ট্রেশন নম্বর সংবলিত প্রবেশপত্র ডাউনলোড করে সংগ্রহ করতে পারবেন।

Similar Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *